Home » রকমারি » ছেলের খোঁজে ৪ লাখ কিলোমিটার

ছেলের খোঁজে ৪ লাখ কিলোমিটার

123হারানো সন্তানের খোঁজে ১৮ বছর ধরে এক বাবা পথে পথে কাটাচ্ছেন তার রাত-দিন। সন্তানের জন্য মা-বাবার ভালোবাসা অকৃত্রিম। পৃথিবীর চিরায়ত এই সত্যের একটি বড় দৃষ্টান্ত বলা চলে এ ঘটনাকে। চীনের সামাজিক মাধ্যমে এ বিষয়টিই এই মুহূর্তে সবচেয়ে আলোচিত। মহান এই বাবার নাম গুও গ্যানট্যাং। বাড়ি চীনের শ্যানডন প্রদেশের লিয়াওচেংয়ে। ১৯৯৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর থেকে তিনি খুঁজে চলেছেন
তার হারানো ছেলেকে। এই দিনে তার দুই বছরের ছেলে গুও ঝেনকে তাদের বাড়ির ফটক থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। প্রত্যক্ষদর্শী এক মেয়ের ভাষ্য মতে, মধ্যবয়সী এক নারী গুও ঝেনকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর ভগ্ন হৃদয় নিয়ে গুও গ্যানট্যাং তার জীবন উৎসর্গ করেন ছেলের সন্ধানে। এ পর্যন্ত তিনি ৪ লাখ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছেন। একমাত্র জিনজিয়ান ছাড়া চীনের সব প্রদেশেই তিনি খুঁজেছেন ছেলেকে। এই কাজে তিনি এ পর্যন্ত ব্যবহার করেছেন ১০টি মোটরসাইকেল। কেউ হয়তো দেখে চিনবে এমন আশায় গ্যানট্যাং তার মোটরসাইকেলের পেছনে সবসময় পতাকার মতো ঝুলিয়ে রাখেন তার প্রাণপ্রিয় ছেলে ঝেনের ছবি।
এককালে ভালোই আয় ছিল গুয়ো গ্যানটংয়ের। ছিলেন বেশ সুদর্শনও। কিন্তু এখন তার বিষণ্ন চেহারা। যেন ১৮ বছরের পথের ধুলোয় মলিন। তার শূন্য চোখ সাক্ষ্য দেয় প্রায় দু’দশকের সহ্য করা কষ্টের। ঝেন হারানোর পর গুয়ো পরিবার আজ পর্যন্ত কোনো পারিবারিক ছবি তোলেনি। ঝেনকে খুঁজে পাওয়ার পর আবার যখন তারা পূর্ণ পরিবারে রূপান্তরিত হবে তখনই আবার পারিবারিক ছবি তুলবে বলে সিদ্ধান্ত গ্যানটংয়ের।
তবে গ্যানটং আজও ঝেনকে খুঁজে না পেলেও সন্তান হারানো মা-বাবাদের জন্য বিধাতার প্রেরিত দূতের মতোই যেন আবির্ভূত হয়েছেন। তার সহায়তায় ডজন ডজন বাচ্চাকে খুঁজে পেয়েছে তাদের মা-বাবা।
সূত্র :অডিটি সেন্ট্রাল।
সৌজন্যে : দৈনিক সমকাল