Home » ফিচার » বরিশালের অনন্য সুন্দর গুঠিয়া মসজিদ

বরিশালের অনন্য সুন্দর গুঠিয়া মসজিদ

মুহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান ও আযাদ আলাউদ্দিন
আনন্দ, ভালোলাগা আর রূপময় স্বপ্নীল পৃথিবীতে ক্ষণিকের জন্য হারিয়ে যেতে মন ছুটে চলে অজানা কোনো সৌন্দর্যের হাতছানি দেয়া পাহাড়, নদী, সাগর ও অরণ্যে। মাঝে মধ্যে বড় একঘেঁয়ে মনে হয়। মন চায় কোনো শিল্পের কারুকার্যে মন রাঙাতে। আর সে মনের খোরাক জোগাতেই দূর থেকে দূরে ছুটে চলা। সে চলার পথের একটি জায়গা বরিশাল জেলার গুঠিয়া ইউনিয়ন। সেখানে শিল্পের ছোঁয়ায় তৈরি করা হয়েছে বায়তুল আমান জামে মসজিদ ও ঈদগাহ কমপ্লেক্স। স্থানীয় লোকদের কাছে এটি পরিচিত গুঠিয়া মসজিদ নামে। বরিশাল মহানগরী থেকে ২২ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে বানারীপাড়া সড়কসংলগ্ন উজিরপুর উপজেলায় এই গুঠিয়া গ্রামের অবস্থান।
Baitul-Aman-Mosqueএই গ্রামে সম্পূর্ণ ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে দেশের অন্যতম সেরা স্থাপত্যশৈলীর নয়নাভিরাম স্থাপনা বায়তুল আমান জামে মসজিদ ও ঈদগাহ কমপ্লেক্স। যেটি এখন দণিাঞ্চলের তো বটেই, সমগ্র বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন এলাকা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।
বরিশালের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এস সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু তার নিজস্ব অর্থায়নে মসজিদটি নির্মাণ করেন।
মসজিদ ও ঈদগাহ কমপ্লেক্স নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় ২০ কোটি টাকা। সময় লেগেছে চার বছর এক মাস। ১৪ একর জমির ওপর নির্মিত মসজিদ ও ঈদগাহ কমপ্লেক্সের মূল গেট দিয়ে প্রবেশ করলে ডান পাশে রয়েছে একটি পুকুর, পুকুরটির চার পাশ বিভিন্ন রঙের ফুল ও গাছ দিয়ে সাজানো হয়েছে। দর্শনার্থীদের চলাচলের জন্য পুকুর পাড়ের রাস্তা পাকা করে দেয়া হয়েছে। মোজাইক দিয়ে তৈরি শান বাঁধানো ঘাটের বাদামগাছের নিচে বসে বাতাসের শীতল ছায়ায় শরীর জুড়িয়ে নিতে পারেন মুসল্লিরা। ঘাটের ঠিক উল্টো দিকে মসজিদের প্রবেশপথে বসানো হয়েছে দু’টি ফোয়ারা। রাতে আলোর ঝলকানিতে ফোয়ারাগুলো আরো দৃষ্টিনন্দন হয়ে ওঠে।
মসজিদের তিন পাশে খনন করা হয়েছে কৃত্রিম খাল। মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের তিন-চারটি মসজিদের আদলে, তবে হুবহু একই রকম নয়। এটির প্রতিষ্ঠাতা সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু তার কয়েকজন স্থপতি বন্ধুকে নিয়ে যান শারজাহ, দুবাই, তুরস্ক, মদিনা শরিফ, ভারত ও পাকিস্তানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। স্থপতিরা বিদেশী বিভিন্ন স্থাপত্য কর্মময় মসজিদের আদলে গুঠিয়ায় এ মসজিদটি নির্মাণ করেন।
মসজিদের সামনের পুকুরটি এমনভাবে খনন করা হয়েছে, যাতে পুকুরের পানিতে মসজিদটির পুরো প্রতিবিম্ব দেখা যায়।
২০টি গম্বুজের স্থাপত্যকলায় সাজানো হয়েছে বায়তুল আমান জামে মসজিদ ও ঈদগাহ কমপ্লেক্স। মাঝখানের কেন্দ্রীয় গম্বুজের চার পাশে বৃত্তাকারে ক্যালিওগ্রাফির মাধ্যমে লেখা হয়েছে পবিত্র আয়াতুল কুরসি। গোটা মসজিদের ভেতরের চার পাশজুড়ে ক্যালিওগ্রাফির মাধ্যমে লেখা হয়েছে সুরা আর রাহমান। ভেতরের চার কোনের চার গম্বুজের নিচে, প্রবেশ তোরণের সামনে এবং ভেতরের দর্শনীয় কয়েকটি স্পটে শোভা পাচ্ছে আল কুরআনের বিভিন্ন আয়াতসংবলিত ক্যালিওগ্রাফি। এসব সুদৃশ্য ক্যালিওগ্রাফি এবং আলপনা করা হয়েছে বর্ণিল কাচ, মূল্যবান মার্বেল পাথর, গ্রানাইট ও সিরামিক দিয়ে। ভেতরের নয়টি গম্বুজে বিশালাকৃতির নয়টি অত্যাধুনিক ও মূল্যবান ঝাড়বাতি বসানো হয়েছে।

বায়তুল আমান জামে মসজিদের ভেতরে লেখক ও ঢাকা ট্যুরিস্ট ক্লাবের প্রেসিডেন্ট

বায়তুল আমান জামে মসজিদের ভেতরে লেখক ও ঢাকা ট্যুরিস্ট ক্লাবের প্রেসিডেন্ট

মসজিদটির মিনারের উচ্চতা ১৮৩ ফুট। মসজিদটির মেঝেতে বসানো হয়েছে ভারত থেকে আনা সাদা মার্বেল পাথরের টাইলস। মসজিদটির ভেতরে এক হাজার ৪০০ মুসল্লি একসাথে নামাজ আদায় করতে পারেন। বাইরের অংশে আরো পাঁচ হাজার মুসল্লি একত্রে নামাজ পড়তে পারেন। মুসল্লিদের সুবিধার্থে স্থাপন করা হয়েছে বিদেশ থেকে আনা অত্যাধুনিক সাউন্ড সিস্টেম।
মসজিদের উত্তর পাশে দুই তলাবিশিষ্ট ভবনে রয়েছে কমপ্লেক্সের অফিস, খতিব ও মুয়াজ্জিনের কোয়ার্টার, এতিমখানা ও হাফেজিয়া মাদরাসা।
মসজিদটির পূর্ব-দক্ষিণ কোণে আড়াই একর জায়গায় রয়েছে কবরস্থান। পুরো কমপ্লেক্সের আঙিনাজুড়েই রয়েছে ফুলের বাগান, গাড়ি পার্কিং ও হেলিপ্যাড। নিরাপত্তার জন্য কমপ্লেক্সের তিন দিকে মনোরম লেক তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়া কাঁটাতারের বেষ্টনী তো আছেই।
বিদ্যুৎ লাইনের পাশাপাশি রয়েছে ১৫০/১৫ কেভিএ শক্তিসম্পন্ন নিজস্ব দু’টি জেনারেটর, যার কারণে মসজিদটি রাতে অনেক বেশি নয়নাভিরাম মনে হয়। কারণ এর ভেতরে-বাইরে এমনভাবে আলোকসজ্জা করা হয়েছে, যা দর্শকদের নিয়ে যায় অপার্থিব জগতে। যা দেখে মনে পড়বে মহান স্রষ্টা আল্লাহর কথা, আপনা থেকেই মাথা নুয়ে আসতে চাইবে মহান প্রভুর দিকে। ২০০৬ সালের ২০ অক্টোবর জুমার নামাজ আদায়ের মাধ্যমে এ মসজিদটির উদ্বোধন করেন ছারছিনা দরবার শরীফের পীর মাওলানা শাহ মোহাম্মদ মোহেববুল্লাহ। মসজিদটি উদ্বোধনের পর থেকেই অগণিত দর্শনার্থী ভিড় জমান এর আঙিনায়।