Home » হেলথ অ্যান্ড সেফটি » আঙ্গুল ফোটানো কতটা খারাপ?

আঙ্গুল ফোটানো কতটা খারাপ?

Finger

ডা. এম. ইয়াছিন আলী
আঙ্গুল ফোটানো যেন অনেকেরই নিত্য-নৈমিত্তিক অভ্যাস। অনেকেই আবার বলেন, আঙ্গুল ফোটালে অনেক ভালো লাগে। তবে আঙ্গুল ফোটানো অনেক ক্ষেত্রে মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে।

আমাদের প্রত্যেক আঙ্গুলে চারটি জয়েন্ট থাকে। এগুলো আমাদের আঙ্গুলকে নড়াচড়া করতে সাহায্য করে। যখন আমরা প্রয়োজনের অতিরিক্ত আঙ্গুল ফোটাই তখন অস্থিসন্ধির অভ্যন্তরীণ আর্টিকুলার কার্টিলেজের ক্ষয় বাড়তে থাকে। এটি পরে আঙ্গুলকে অস্থি সন্ধিগুলোর ক্ষয়জনিত বাত রোগ- অষ্টিওআর্থ্রাইটিসের দিকে ঠেলে দেয়।

এতে আঙ্গুলের জোড়ায় ব্যথার সৃষ্টি হয়। কখনো কখনো আঙ্গুলের জোড়াগুলো ফুলে যেতে পারে। আঙ্গুল নাড়াতে কষ্ট হয়। ব্যথার জন্য হাত মুঠ করতে কষ্ট হয়। হাত দিয়ে কোনো কিছু ধরতে সমস্যা হয়। এমনকি রোগী হাত দিয়ে খাবার খেতেও পারে না।

তা ছাড়া যারা আগে থেকেই অনস্টিওআর্থ্রাইটিসে ভুগছেন, যাঁদের বয়স পঞ্চাশের ঊর্ধ্বে, যাঁদের অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ের ক্ষয় রোগ আছে, হাড়ের ঘনত্ব কমে গেছে, তারা আঙ্গুল ফোটালে ফ্রাকচার হতে পারে বা আঙ্গুলের হাড় ভেঙে যেতে পারে। তাই এই বিষয়ে সচেতন হওয়া জরুরি। আর যারা উপরোক্ত সমস্যায় ভুগছেন তাঁদের জন্য পরামর্শ হলো:

– বিনা প্রয়োজনে আঙ্গুল ফোটানো থেকে বিরত থাকুন।
– হাড় মজবুত রাখতে প্রচুর পরিমণে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন-ডি জাতীয় খাবার খান।
– আঙ্গুলের ব্যথা কমানোর জন্য হাইড্রোথেরাপি ও প্যারাফিন ওয়াক্স বাথ থেরাপি নিন।
– আঙ্গুলের নড়াচড়া ঠিক রাখার জন্য মোবিলাইজেশন ও ম্যানুপুলেশন থেরাপি চিকিৎসা নিন।
লেখক : চেয়ারম্যান ও চিফ কনসালট্যান্ট, ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসাপাতাল
সৌজন্যে : এনটিভি