Home » ভ্রমণ (page 20)

ভ্রমণ

হিমাচল মানেই শিমলা, কুলু, মানালি নয়

নৈসর্গিক প্রকৃতি, বিস্তর তুষারপাত, সাদা মেঘের পাহাড়, সবুজ গালিচায় মোড়ানো অনন্য ক্যানভাস। পুরোটাই হিমাচলের রূপবৈচিত্র্য। পাশেই ভারতের অন্যতম মনোমুগ্ধকর পর্যটন শহর হিমাচল প্রদেশের ধর্মশালা। সকালে রোদ, বিকালে মেঘ আর রাতে প্রচণ্ড শীত। সব মিলিয়ে অদ্ভুত এক প্রকৃতি বিরাজ করে ছবির মতো সুন্দর ধর্মশালায়। শহুরে রুক্ষতা, কৃত্রিমতা থেকে অনেক দূরে প্রকৃতির আন্তরিক আতিথেয়তা পর্যটককে মুগ্ধ করবেই। হিমাচলের নৈসর্গিক শহর ধর্মশালা সম্পর্কে ...

বিস্তারিত »

ঐতিহাসিক কলকাতা

কলকাতা, ভারতের পূর্বাঞ্চলের বৃহত্তম শহর। ঔপনিবেশিক শহরটিকে পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী বলা হয়ে থাকে। প্রাচীন ঔপনিবেশিক সংস্কৃতির অদ্ভুত মিশ্রণ, বাংলা সংস্কৃতির স্পন্দন, ঐতিহাসিক ব্রিটিশ স্থাপনা আর ব্রিটিশ উপমহাদেশীয় অভিব্যক্তি সমৃদ্ধ শহর। পাশ্চাত্য শিল্পের মিশ্রণ এবং প্রাচীন শিল্পশৈলীতে ভরপুর আধুনিক কলকাতা পর্যটন রাজ্যের অন্যতম একটি শহর। ব্রিটিশ আমলের সুদীর্ঘ লাল দালানে ভরপুর কলকাতা শহর। বাঙালিয়ানা সংস্কৃতি, ভাষার ঐক্য আর ভৌগোলিক অবস্থান সব মিলিয়ে ...

বিস্তারিত »

মালয়েশিয়ায় পড়তে জানতে হবে যেসব বিষয়ে

কায়সার হামিদ হান্নান আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে মালয়েশিয়া অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছে। দেশটি শিক্ষাক্ষেত্রেও অনেক উন্নত হয়েছে। বর্তমানে এশিয়ার বড় এডুকেশনাল হাব হিসেবে রূপ নিয়েছে দেশটি। এখানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে অসংখ্য বিশ্বমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তাই উচ্চশিক্ষার জন্য বাংলাদেশের অনেকেই এখন ছুটছেন দেশটিতে। শিক্ষার পরিবেশ মালয়েশিয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে রয়েছে শিক্ষার্থীদের জন্য পর্যাপ্ত রেফারেন্স বইসহ সমৃদ্ধ লাইব্রেরি। আধুনিক বৈজ্ঞানিক শিক্ষা সারঞ্জামাদির সফল ব্যবহার করা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। দেশি-বিদেশি দক্ষ ...

বিস্তারিত »

চক্রাকার বাসে হাতিরঝিল ভ্রমণ

হাসান আদিল জ্যামের শহর ঢাকা এ কথা রাজধানীর সবাই জানে। নানা চেষ্টা করেও এ সমস্যা থেকে মুক্তি মিলছে না নগরবাসীর। ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় বসে কাঁটানো নগরবাসীর নিত্যদিনকার রুটিনে পরিণত হয়েছে। তবে তেজগাঁও, গুলশান, বাড্ডা, রামপুরা, মৌচাক ও মগবাজারের বাসিন্দাদের কাছে সেই সময় এখন অতীত। ম্রীয়মাণ হয়ে আসছে তাদের কাছে ‘জ্যামের শহর’ অপবাদ। জ্যাম আর নেই, সাথে আছে প্রকৃতির ছোঁয়া, ...

বিস্তারিত »

এই আমাদের সোনার চর

ফারুখ আহমেদ সময় বেলা একটা। আমরা তিনজন দাঁড়িয়ে অর্ধচন্দ্রাকৃতির এক সমুদ্রসৈকতে। গোসল করার জন্য আদর্শ জায়গা। কিন্তু আমাদের ভাবনার জগৎজুড়ে আছে সমুদ্রসৈকত আর তার চারপাশের পরিবেশ। সমুদ্রসৈকতের পেছনে ঝাউগাছের সারি, ঢেউয়ের উথালপাতাল, অসংখ্য মাছ ধরার নৌকা, দূরে জেলেদের অস্থায়ী ছোট একটি গ্রাম মন কেড়ে নিয়েছে আমাদের। এমন জনমানবহীন সমুদ্রসৈকত দেখে ভেবে বসেছিলাম দ্বীপটির মালিক আমরা তিনজন। আমরা তিনজন হচ্ছি আমি, ...

বিস্তারিত »

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্বাধীনতা জাদুঘর

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে ৭ মার্চ বাঙালিকে স্বাধীনতার মন্ত্রবাণী শুনিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। স্বাধীনতা জাদুঘর হয়েছে এ উদ্যানে। গত ২৬ মার্চ জাদুঘরটি যাত্রা শুরু করে। জাদুঘরসহ পুরো কমপ্লেক্সের স্থপতিদের একজন মেরিনা তাবাশ্যুম। তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন আতিফ আতাউর। ছবি তুলেছেন শেখ হাসান ও নাভিদ ইশতিয়াক তরু ১৯৯৭ সালে পাবলিক ওয়ার্ক ডেভেলপমেন্ট (পিডাব্লিউডি) স্বাধীনতা জাদুঘর ও স্বাধীনতা স্তম্ভ কমপ্লেক্স তৈরির একটি নকশা প্রতিযোগিতার ...

বিস্তারিত »

গাঙচষার খোঁজে দমারচরে

গাজী মুনছুর আজিজ সাগরের কোলঘেঁষে মেঘনা নদীর মোহনায় দমারচরের অবস্থান। চরের কিছুটা অংশ জুড়ে ম্যানগ্রোভ বন। বাকিটা কাদা-বালু। নোয়াখালীর হাতিয়ার দক্ষিণে জাহাজমারা-মোক্তারিয়া চ্যানেলের পাশে এ চর। এর আগে একাধিকবার এসেছি এ চরে। একাধিক আসার কারণ চরের আকর্ষণ। আর আকর্ষণের কারণ- পাখি। বিপন্ন দেশি-গাঙচষাসহ নানা প্রজাতির পাখি এখানে দেখা যায়। মূলত বাংলাদেশে দেশী গাঙচষা পাখির একমাত্র আবাসস্থল এ চর। পাখি দেখতেই ...

বিস্তারিত »

তাজহাট জমিদারবাড়ী

তাজহাট জমিদারবাড়ী ইতিহাস-ঐতিহ্যের অন্যতম স্মারক। ঐতিহাসিক প্রাসাদটিকে ঘিরে রয়েছে অসংখ্য ইতিহাস। দেশের সুবিশাল ও অনন্য সুন্দর স্থাপনাগুলোর মধ্যে তাজহাট জমিদারবাড়ী অন্যতম। বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহূত হচ্ছে। পর্যটকদের জন্য এটি আকর্ষণীয় স্থান। ঐতিহাসিক সংগ্রহশালার প্রাসাদটি ভ্রমণপ্রিয় মানুষকে মুগ্ধ করবে। বাংলাদেশজুড়েই ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা অসংখ্য প্রাকৃতিক ও ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থান রয়েছে। অপূর্ব স্থাপত্যিক নিদর্শন আর জমিদারবাড়ীর ঐতিহ্য আর সংস্কৃতি জড়িয়ে থাকা ইতিহাস সংবলিত ...

বিস্তারিত »

বাকুকুকু রেস্তোরাঁ ও মালাতালেই গ্রাম

মঈনুস সুলতান প্রচুর পর্বত ও হাল্কা বনানীতে পূর্ণ আফ্রিকার ছোট্ট রাজ্য লিসোটো- তে কিছুদিন হলো আমি বাস করছি। লিসোটোর রাজধানী হচ্ছে মাসেরু। শহরটি জনবহুল নয় একেবারে। তার ভীড়ভাট্টাহীন রাজপথ ধরে সুহৃদ মি. মোজাফেলাকে সাথে নিয়ে আমি মি. কাগেতাং কতসোফালাং নাকানে-র সাথে দেখা করতে চলছি। মি. নাকানে মাসেরু শহরে যে বাড়িটি হাঁকিয়েছেন তা আকারে বিরাট। ছাটা ঘাসের লনের প্রান্তে কলোনিয়েল কেতার ...

বিস্তারিত »

আলুটিলা গুহার রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা

১০ টাকার একটি টিকিট, আর ১০ টাকায় একটি মশাল। মাত্র ২০ টাকা আপনাকে কিছুক্ষণের জন্য নিয়ে যাবে একেবারে আদিম যুগে। অন্ধকার গুহায় পাড়ি দিতে হবে উঁচু-নিচু পাথুরে পথ, নিচ দিয়ে বয়ে যাচ্ছে পাহাড়ি ঝরনা থেকে নেমে আসা হিমশীতল পানি। মাঝে মাঝে বাদুড় ছানা উড়ে যাচ্ছে মাথার উপর দিয়ে। এটি বিদেশি বা কৃত্রিম কোনো দৃশ্য নয়। টিকিটের সামান্য দাম দিয়ে বোঝানো ...

বিস্তারিত »